h-o-r-o-p-p-a-হ-র-প্পা

| চাণক্যজন কহেন…০২ | ভর্তৃহরিপর্ব |

Posted on: 12/03/2012


.
| চাণক্যজন কহেন…০২ | ভর্তৃহরিপর্ব |
-রণদীপম বসু

ভর্তৃহরি
.
সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য রক্ষিত না হওয়ায় সংস্কৃত সাহিত্যের অন্যতম কবিশ্রেষ্ঠ ভর্তৃহরির জীবন-চরিতের জন্যেও জনশ্রুতি-নির্ভর হওয়া ছাড়া গত্যন্তর নেই। বিভিন্ন জনশ্রুতি-প্রসূত তথ্য বিশ্লেষণ করে গবেষকরা খ্রিস্টপূর্ব প্রথম শতককে ভর্তৃহরির অধিষ্ঠানকাল হিসেবে চিহ্নিত করেন। কিংবদন্তী অনুযায়ী- ভর্তৃহরি ছিলেন মালব দেশের অধিবাসী এবং জাতিতে ক্ষত্রিয়। রাজপরিবারে জন্মগ্রহণকারী ভর্তৃহরির পিতার নাম ছিলো গন্ধর্ব সেন। গন্ধর্ব সেনের দুই স্ত্রী। প্রথমা স্ত্রীর পুত্র ভর্তৃহরি এবং দ্বিতীয়া স্ত্রীর পুত্র বিক্রমাদিত্য- যার নামে ‘সম্বৎ’ সন বা ‘বিক্রমাব্দ’ প্রচলিত। উল্লেখ্য, বিক্রম সম্বৎ গণনা শুরু হয় ৫৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে।
বিক্রমাদিত্যের মা ছিলেন মালব দেশের তৎকালীন রাজধানী ধারা নগরের রাজকন্যা। ধারারাজের কোন পুত্র সন্তান না-থাকায় উভয় দৌহিত্র অর্থাৎ ভর্তৃহরি ও বিক্রমাদিত্যকে তিনি তুল্যস্নেহে পরিপালন করেন এবং যথাসময়ে সর্বশাস্ত্রে পারদর্শী করে তোলেন।
.
স্বাভাবিক স্নেহবশতই ধারাপতি একসময় আপন দৌহিত্র বিক্রমাদিত্যকে সিংহাসনে অভিষিক্ত করার অভিলাষ করেন এবং বিক্রমাদিত্যকে তাঁর সংকল্পের কথা জানান। জ্যেষ্ঠ বর্তমানে তিনি সিংহাসনে বসতে অনিহা প্রকাশ করায় তাঁর যুক্তি ও ঔদার্যে মুগ্ধ হয়ে ধারাপতি ভর্তৃহরিকেই সিংহাসনে অভিষিক্ত করেন এবং তাঁর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন অনুজ বিক্রমাদিত্য। এর কিছুকাল পরে তাঁরা মালবের রাজধানী ধারানগর থেকে উজ্জৈন-এ স্থানান্তর করেন।
.
বিক্রমাদিত্যের সুযোগ্য মন্ত্রণায় রাজ্য নির্বিঘ্নেই চলছিলো এবং প্রজারা সুখেই দিনাতিপাত করছিলো। বিক্রমাদিত্যের সঠিক ও সফল পরিচালনার জন্য ভর্তৃহরিকে প্রায় কোন কিছুর প্রতিই দৃষ্টি দিতে হতো না বলে এই সুযোগে ভর্তৃহরি মদ ও নারীতে আসক্ত হয়ে অন্তঃপুরে নারীসঙ্গ ও নারীসম্ভোগেই দিন কাটাতে লাগলেন। বিক্রমাদিত্য এ বিষয়ে তাঁকে বহুবার সাবধান করে রাজকার্যের প্রতি মনোসংযোগ করতে পরামর্শ দিলেনও তিনি তাতে কর্ণপাত না করে উল্টো বিক্রমাদিত্যের প্রতি বিরক্ত ও ক্রুদ্ধ হয়ে ওঠতে লাগলেন। এমনিভাবে ভর্তৃহরি অনন্ত বিলাসের মধ্য দিয়ে ক্রমশ অধঃপাতের দিকে এগিয়ে গেলেন। অবস্থা সংকটজনক পর্যায়ে পৌঁছলে কোনও এক নারীঘটিত গুপ্ত ষড়যন্ত্রের ফলে পরস্পরের সৌভ্রাতৃত্ব শত্রুতায় পর্যবসিত হয় এবং স্ত্রী (বা প্রেমিকা)-র পরামর্শে ভর্তৃহরি বিক্রমাদিত্যকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে অপসারিত ও নির্বাসিত করেন।
.
বিক্রমাদিত্যকে পদচ্যুত ও নির্বাসিত করে ভর্তৃহরি নির্বাধায় সুরা ও নারীভোগে নিমজ্জিত হন। এদিকে বিক্রমাদিত্যকে অপসারণ করায় এবং তাঁর অপশাসনে প্রজারা তাঁর প্রতি বিক্ষুব্ধ ও বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়ে। প্রজাদের স্বেচ্ছাচারিতায় সমগ্র মালবদেশ অরাজকতা ও বিশৃঙ্খলায় ছেয়ে যায়।
.
অন্য এক তথ্যে ‘অর্বাচিনকোষ’ মতে ভর্তৃহরির পিতা ছিলেন একজন গন্ধর্ব। তাঁর নাম বীরসেন। বীরসেনের স্ত্রী অর্থাৎ ভর্তৃহরির মা সুশীলা ছিলেন জম্বুদ্বীপরাজের একমাত্র কন্যা। ভর্তৃহরিরা ছিলেন চার ভাই-বোন, যথাক্রমে- ভর্তৃহরি, বিক্রমাদিত্য, সুভতবীর্য এবং ময়নাবতী। ধারণা করা হয় এই ময়নাবতীই ছিলেন বিক্রমপুরের ইতিহাস প্রসিদ্ধ রাজা গোপিচন্দের জননী। ভর্তৃহরির মাতামহ জম্বুদ্বীপরাজের কোন পুত্র সন্তান না থাকায় জ্যেষ্ঠ দৌহিত্র ভর্তৃহরিকে তিনি তাঁর রাজ্য দান করেন। ভর্তৃহরি তাঁর রাজধানী জম্বুদ্বীপ হতে উজ্জৈন-এ স্থানান্তরিত করে বিক্রমাদিত্যকে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত করেন এবং সুভতবীর্যকে তাঁর প্রধান সেনাপতি করেন।
.
পণ্ডিত শশগিরি শাস্ত্রী প্রবর্তিত অন্য এক প্রচলিত মতানুযায়ী চন্দ্রগুপ্ত নামে জনৈক ব্রাহ্মণের চারবর্ণের চারজন স্ত্রী ছিলেন। তাঁরা হলেন যথাক্রমে- ব্রাহ্মণ জাতীয়া ব্রাহ্মণী, ক্ষত্রিয়া ভানুমতী, বৈশ্যা ভাগ্যবতী এবং শূদ্রা সিন্ধুমতী। এই চার স্ত্রীর গর্ভে চন্দ্রগুপ্তের চারজন পুত্র জন্মে, যথাক্রমে- বররুচি, বিক্রমার্ক, ভট্টি ও ভর্তৃহরি। বিক্রমার্ক রাজা হন এবং ভট্টি (মতান্তরে ভট্টি ও ভর্তৃহরি) তাঁর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে নিযুক্ত হন।
.
উপরোক্ত এই তিন ধরনের পরস্পর-সাদৃশ্য-বৈসাদৃশ্যময় তথ্যপুঞ্জি থেকে এখন পর্যন্ত কোন্ তথ্যটি সঠিক তা নির্ধারণ করা দুরুহ হলেও সাদৃশ্যটুকু থেকে আমরা অন্তত এটুকু ধারণা করতে পারি যে- ভর্তৃহরি হয়তো মাতামহের রাজ্য পেয়ে একজন রাজা বা রাজপুরুষ ছিলেন, ফলে রাজ্য বা রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং বিক্রমার্ক বা বিক্রমাদিত্য তাঁর ভাই ছিলেন।
.
ভর্তৃহরির দাম্পত্যজীবন নিরঙ্কুশ সুখের ছিলো না। দাম্পত্য জীবনে তিনি যে ঘনিষ্ঠ সহযোগিনী স্ত্রীর দ্বারা প্রতারিত হয়েছিলেন তা তাঁর নামে প্রচলিত চমৎকার একটি কিংবদন্তী থেকে জানা যায়-
একদিন জনৈক ব্রাহ্মণ পুত্রলাভের আনন্দে উৎফুল্ল হয়ে প্রসন্ন চিত্তে রাজা ভর্তৃহরিকে একটি দৈব ফল দান করেন- যে ফল ভক্ষণে আয়ু বৃদ্ধি পাবে। রাজা এই অসাধারণ ফলটি নিজে না খেয়ে প্রিয়তমা স্ত্রী অনঙ্গসেনাকে দিলেন। অনঙ্গসেনার আবার এক গোপন প্রেমিক ছিলো- ফলটি তিনি তাকে দিলেন। সেই প্রেমিক আবার এক পতিতার প্রণয়াসক্ত ছিলো- তাই ফলটি সে ওই পতিতাকে দিলো। সেই পতিতা আবার মনে মনে রাজা ভর্তৃহরিকে ভালোবাসতো। ‘এই ফল ভক্ষণে রাজা দীর্ঘায়ু হলে রাজ্যের লাভ’- এরকম চিন্তা করে সে তাই ফলটি রাজাকেই দিয়ে দিলো। স্ত্রীকে দেয়া ফলটি পুনরায় পতিতার হাত থেকে ফিরে পেয়ে ভর্তৃহরি যারপর নেই বিস্মিত হলেন। স্ত্রী অনঙ্গসেনাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। এতে ভর্তৃহরি হৃদয়ে মর্মান্তিক বেদনা বোধ করলেন। প্রাণাধিক প্রিয়তমা স্ত্রীর এরূপ বিশ্বাসঘাতকতায় মর্মাহত ভর্তৃহরি ভাবলেন-
যাং চিন্তয়ামি সততং মরি সা বিরক্তা
সাপ্যন্যমিচ্ছতি জনং স জনোন্যসক্তঃ।
অস্মৎকৃতে চ পরিশুষ্যতি কাচিন্যা
ধিক্ তাং চ তং চ মদনং চ ইমাং চ মাং চ।। ০২।। (ভর্তৃহরি নীতিশতক)
অর্থাৎ : আমি যার ভজনা করি সে আমার প্রতি বিরক্ত, অন্য পুরুষ তার মনের মানুষ। সেই পুরুষ আবার অন্য (বারবণিতা) নারীর প্রতি অনুরক্ত। আমাকে পেয়েও আনন্দ পায় সেই অন্য নারী। ধিক্ সেই নারীকে, ধিক সেই পুরুষকে, ধিক সেই বারবণিতাকে, ধিক কামদেবকে যার প্রভাবে এসব সংঘটিত হচ্ছে, এবং ধিক আমাকেও।

.
ভর্তৃহরি স্ত্রীকে তীব্র ভাষায় ভর্ৎসনা করেন। অনঙ্গসেনাও এই কলঙ্কিত জীবনের ভার বইতে না পেরে আত্মহত্যা করে নিষ্কৃতি লাভ করেন। স্ত্রীর এই আত্মহত্যার ঘটনায় ভর্তৃহরির হৃদয় পুনরায় আহত হয়। ভর্তৃহরির এই দুঃসময়ে সত্যিকারের পতিভক্তি ও প্রগাঢ় বিশ্বাসের আধার হয়ে এগিয়ে আসেন তাঁর দ্বিতীয়া স্ত্রী কোমলহৃদয়া পিঙ্গলা। পিঙ্গলার অসাধারণ সেবাযত্নে ভর্তৃহরি ক্রমশ সুস্থ হয়ে ওঠেন এবং আবার যেন নতুন জীবনে পদার্পণ করে পরম সুখে কাটতে থাকে তাঁর দাম্পত্য জীবন।
.
কিন্তু বিধি বাম ! এ সময়ে ঘটে তাঁর দ্বিতীয় মর্মান্তিক ঘটনা, যার কারণে তিনি সংসার-বিবাগী হয়ে যান এবং রচনা করেন ‘বৈরাগ্যশতক’।  জনশ্রুতি অনুযায়ী ঘটনাটি হলো-
ভর্তৃহরি একদিন শিকার সন্ধানে বনে যান। সেখানে গিয়ে তিনি সাংঘাতিক এক দৃশ্য দেখতে পান। দেখেন- জনৈক ব্যাধ (শিকারী) বাণ দ্বারা একটি হরিণকে বধ করে সে নিজেও সেখানেই সর্পাঘাতে মৃত্যুবরণ করে। তিনি আশ্চর্য বিস্ময়ে দেখলেন- কিছুক্ষণ পর হরিণীটি এসে মৃত হরিণটির নিস্তব্ধ অসার দেহের উপর পতিত হয়ে প্রাণত্যাগ করে। শুধু তা-ই নয়, আরও কিছুক্ষণ পরে দেখা গেলো- ওই শিকারীর স্ত্রী এসে চিতাগ্নিতে স্বামীসহ ভস্মীভূত হয়ে যায়।
.
এই দৃশ্য ভর্তৃহরির হৃদয়ে গভীর রেখাপাত করে এবং তিনি বিষণ্ন হয়ে পড়েন। মৃগয়া পরিত্যাগ করে তিনি রাজধানীতে প্রত্যাবর্তন করেন এবং রাণী পিঙ্গলাকে অরণ্যের সেই বিস্ময়কর ঘটনা সবিস্তারে শোনান। রাণী পিঙ্গলা সমস্ত ঘটনা শুনে বলেন- পতির বিরহে সতী নারী আত্মাহুতি দেবে, এতে বিস্ময়ের কিছু নেই, বরং প্রকৃত সতী যে- এরূপ আত্মাহুতিতে তার আগুনেরও প্রয়োজন হয় না।
পিঙ্গলার এ কথায় রাজা আরও বিস্মিত হন।  তাঁর মনে একটু সন্দেহেরও সৃষ্টি হয়। তাই তিনি সঙ্কল্প করেন- পিঙ্গলার পতিভক্তির পরীক্ষা নেবেন।
.
পরিকল্পনা অনুযায়ী রাজা কয়েকদিন পরে পুনরায় মৃগয়ায় বের হলেন। মৃগয়ায় গিয়ে নিজের পোশাক-পরিচ্ছদে রক্ত মাখিয়ে স্বীয় অনুচর দ্বারা রাজধানীতে রাণী পিঙ্গলার কাছে পাঠিয়ে দেন। অনুচর রাণীকে রাজার রক্তাপ্লুত পোশাক অর্পণ করে নিবেদন করে যে- বাঘের হাতে রাজার মৃত্যু হয়েছে, এই তাঁর রক্তাক্ত পরিচ্ছদ। সরলপ্রাণা পিঙ্গলা আকস্মিক এ মর্মান্তিক সংবাদে প্রথমে স্তব্ধ হয়ে যান। কিছুক্ষণ পর শান্তভাবে রাজার রক্তমাখা পরিচ্ছদ হাতে নিয়ে সেগুলি মাটিতে রেখে অন্তিম প্রণতি জানান এবং ভূমিতে শায়িত অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
.
রাজধানীতে ফিরে এসে ভর্তৃহরি এই হৃদয় বিদারক ঘটনা শুনে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে যান। আপন দোষে তিনি পিঙ্গলাকে হারিয়েছেন- এ কারণেই তাঁর ব্যথা আরও বেশি করে অনুভূত হতে লাগলো। তিনি বারবার নিজেকে ধিক্কার দিতে লাগলেন। পরপর দু’বার প্রিয়তমা স্ত্রীদের দ্বারা এভাবে মর্মাহত হয়ে সংসারের প্রতি ভর্তৃহরির মোহ কেটে যায়। শেষপর্যন্ত সংসার ছেড়ে বৈরাগ্য গ্রহণ করে তিনি অরণ্যে গমন করেন।
.
ভর্তৃহরি বিতর্ক
সংস্কৃত সাহিত্যের ইতিহাসে ‘ভট্টি’ ও ‘ভর্তৃ-হরি’ নামে তিনজন ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায় এবং এ তিনজনই কবি। ভট্টির রচনা ‘ভট্টকাব্য’ বা ‘রাবণবধ’ একটি মহাকাব্য। প্রথম ভর্তৃহরির রচনা ‘শতকত্রয়’- শৃঙ্গারশতক, নীতিশতক ও বৈরাগ্যশতক।  আর দ্বিতীয় ভর্তৃহরির রচনা হলো পতঞ্জলির মহাভাষ্যের উপর ব্যাকরণদর্শন জাতীয় গ্রন্থ ‘বাক্যপদীয়’। এ তিনজনই একই ব্যক্তি না কি পৃথক তিনজন কবি ছিলেন- এ নিয়ে পণ্ডিত-গবেষকদের মধ্যে তুমুল বিতর্ক রয়েছে।
.
কেউ বলেন এঁরা তিনজন পৃথক ব্যক্তি ((-M.R.Kale), কেউ বলেন এঁরা তিনজন একই ব্যক্তি (-A.A.Mackonell ও ড. রামেশ্বর শ’)। আবার কারো মতে ভট্টি এবং শতকরচয়িতা ভর্তৃহরি এক এবং বাক্যপাদীয়কার ভর্তৃহরি ভিন্ন ব্যক্তি (-ড. বিধানচন্দ্র ভট্টাচার্য)। এ  মতের বিরোধিতা করে আবার কেউ কেউ বলেন- ভট্টি এবং শতককার ভর্তৃহরি এক নন (-S.N.Dasgupta, S.K.De, Krishna Chitanya, জাহ্নবীকুমার চক্রবর্তী এবং জাহ্নবীচরণ ভৌমিক)। শতককার ভর্তৃহরি এবং বাক্যপদীয়কার ভর্তৃহরি একই ব্যক্তি বলেও মতামত প্রকাশ করেন কেউ কেউ (-জাহ্নবীচরণ ভৌমিক, সুবুদ্ধিচরণ গোস্বামী এবং Krishna Chitanya)। আবার দুই ভর্তৃহরি এক- এই মতকেও স্বীকার করেন নি কেউ কেউ- (Prof,K.B.Pathak Ges K.T.Telang)। এভাবে বর্তমান সময় পর্যন্ত আরও অনেক গবেষকই এ বিষয়ে তাঁদের নিজস্ব মতামত ব্যক্ত করেছেন।
.
চৈনিক পরিব্রাজক ইৎ-সিং (I-tsing) ৬৯১ খ্রিস্টাব্দে ভারত ভ্রমণে আসেন। জানা যায়, তিনি তাঁর বিবরণীতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করে গেছেন যে, তাঁর আগমনের ৪০ বৎসর পূর্বে (৬৫১ খ্রিঃ) বৈয়াকরণ ভর্তৃহরি মৃত্যুবরণ করেন। তিনি (ভর্তৃহরি) ছিলেন একজন বৌদ্ধ এবং ‘বাক্যপদীয়’ নামক গ্রন্থটি তাঁরই রচিত। এই পরিব্রাজকের বিবরণীতে জনৈক ভর্তৃহরি সম্পর্কে এক চমৎকার ঘটনা যায়। তিনি (ভর্তৃহরি) নাকি সংসার ছেড়েও সংসারের মায়া একেবারে পরিত্যাগ করতে পারেন নি। সন্ন্যাসজীবনে তিনি এক সময় বৌদ্ধ সঙ্ঘে আশ্রয় নেন। কিন্তু যখনই সংসারের সুখ-দুঃখের কথা মনে পড়তো তখনই ছুটে যেতেন সংসার জীবনে। এজন্য একটি গাড়িও না-কি সর্বদা প্রস্তুত থাকতো যাতে ইচ্ছে মতো তিনি সংসারে ফিরে যেতে পারেন। এমনিভাবে ভর্তৃহরি না-কি সাতবার বৌদ্ধ সঙ্ঘে যোগ দিয়েছেন এবং সাতবার সঙ্ঘের নিয়ম ভঙ্গ করেছেন। এই ভর্তৃহরি শতককার ভর্তৃহরি না হয়ে বাক্যপদীয়কার ভর্তৃহরি হওয়াই যুক্তিসঙ্গত, কারণ শতককার ভর্তৃহরি বৌদ্ধ ছিলেন না, ছিলেন শৈব।
.
ভট্টি বা শতককার ভর্তৃহরি কেউ-ই বৌদ্ধ ছিলেন না। তাঁদের রচনায় এমন কথা বা প্রামাণ্য তথ্য নেই যার দ্বারা এটা অনুমিত হতে পারে যে, তাঁদের রচয়িতা বৌদ্ধ কবি।  ভট্টির মহাকাব্যের (ভট্টিকাব্য বা রাবণবধ) ঘটনা রামায়ণাশ্রয়ী এবং তার নায়ক স্বয়ং রাম- হিন্দু ধর্মের একজন আদর্শ পুরুষ। রাম হিন্দুদের কাছে বিষ্ণুর অবতার বলেই খ্যাত। তাছাড়া ভট্টির কাব্য-রচনার পেছনে প্রচলিত কিংবদন্তী থেকেও বুঝা যায় যে তিনি একজন বেদজ্ঞ হিন্দু ছিলেন। অন্যদিকে বৌদ্ধরা বেদবিরোধী নাস্তিক।
.
আর শতককার ভর্তৃহরি যে হিন্দু ছিলেন এর বড় প্রমাণ তাঁর শতকত্রয়। নীতিশতকের শুরুতেই তিনি ব্রহ্মকে নমস্কার জানিয়েছেন ‘নম শান্তায় তেজসে’ বলে-

দিক্কালাদ্যনবচ্ছিন্নানন্তচিন্মাত্রমূর্তয়ে।
স্বানুভূত্যেকমানায় নমঃ শান্তায় তেজসে।। ০১।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : দিক-কালাদি দ্বারা যাঁর পরিমাপ করা যায় না, যিনি অনন্ত; জ্ঞাময় যাঁর আকৃতি (শরীর) (এবং) আপন উপলব্ধি-ই যাঁর একমাত্র প্রমাণ (অর্থাৎ আপন উপলব্ধি-ই যাঁকে জানার একমাত্র উপায়) (সেই) শমগুণবিশিষ্ট জ্যোতির্ময় (ব্রহ্ম)-কে নমস্কার।

.
নীতিশতকের এই নান্দীশ্লোক ছাড়াও আরও অনেক শ্লোকেই তিনি ব্রহ্মসহ অন্যান্য হিন্দু দেব-দেবতা এবং অবতার সম্পর্কে বলেছেন। নীতিশতকে ভর্তৃহরি মানুষের আরাধ্য দেবতা হয় শিব অথবা কেশব (বিষ্ণু) বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন-

একো দেবঃ কেশবো বা শিবো বা
একং মিত্রং ভূপতির্বা যতির্বা।
একো বাসঃ পত্তনে বা বনে বা
একা ভার্যা সুন্দরী বা দরী বা।। বিবিধ-১১।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : (এ সংসারে মানুষের) দেবতা একজনই (হওয়া উচিত)- হয় বিষ্ণু, না হয় শিব; সুহৃদ একজনই- রাজা অথবা যোগী; বাসস্থান একটাই- নগর অথবা বন, (এবং) স্ত্রী একজনই- সুন্দরী যুবতী অথবা গিরিগুহা।

.
এভাবে শতককার ভর্তৃহরি তাঁর অন্য রচনা শৃঙ্গারশতকের শুরুতে স্মরণ করেছেন হিন্দু ধর্মের প্রধান তিন দেবতা ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিবকে ‘শম্ভুস্বয়ম্ভূহরয়ঃ’, এবং নান্দী ব্যতীত আরও অনেক জায়গায় তিনি ‘ব্রহ্মা’ সহ হিন্দু দেব-দেবীর কথা বলেছেন। আর বৈরাগ্যশতকে তিনি প্রথমেই আত্মনিবেদন করেছেন সমস্ত ‘অজ্ঞান-অন্ধকারের… জ্ঞানালোকস্বরূপ ভগবান শিব’-এর পায়ে ‘…মোহতিমি… জ্ঞানপ্রদীপো হরঃ’। এছাড়াও বৈরাগ্যশতকের বিভিন্ন জায়গায় শ্লোকে শিবের অর্চনা ও তৎপদে আত্মনিবেদনের কথা বলেছেন।
.
আবার গবেষকদের মতে শতকত্রয় এবং ভট্টিকাব্যের অভ্যন্তরীণ প্রমাণ থেকেও এটা প্রতীয়মান হয় না যে, এগুলি একই ব্যক্তির রচনা। ভট্টিকাব্যের রচয়িতা একজন বৈয়াকরণ হওয়ায় ব্যাকরণের দিক থেকে দেখলে দেখা যায় ভট্টিকাব্য একটি সার্থক রচনা, সাহিত্যের দিক থেকেও একই কথা প্রযোজ্য। এছাড়া কবি নিজেই তাঁর কাব্যপাঠের ব্যাপারে চমৎকার হুশিয়ারী জ্ঞাপন করেছেন এ বলে যে- ব্যাকরণে উৎসাহী পাঠকের কাছে এই কাব্য উজ্জ্বল দীপতুল্য কিন্তু ব্যাকরণ-জ্ঞানহীন ব্যক্তির পক্ষে এটি অন্ধের হাতে দর্পণের মতো- ‘দীপতুল্যঃ প্রবন্ধোয়ং শব্দলক্ষণচক্ষুষাম্’। কিংবা-

ব্যাখ্যাগম্যমিদং কাব্যমুৎসবঃ সুধিয়ামলম্ ।
হতা দুর্মেধসশ্চাস্মিন্ বিদ্বৎপ্রিয়তয়া ময়া।।
অর্থাৎ : আমার এই কাব্য ব্যাখ্যা দ্বারা বোধ্য; ইহা সুধীগণের উৎসব স্বরূপ; দুর্মেধা ব্যক্তি তাতে প্রবেশ করতে পারবে না।

.
ভট্টিকাব্য রচয়িতার এই হুঁশিয়ারি হয়তো যথার্থই। কিন্তু শতকত্রয় সম্পর্কে এ কথা বলা যায় না। ভট্টিকাব্যের তুলনায় শতকত্রয় নিতান্তই কাঁচা হাতের লেখা বলে মনে হয়। শতকত্রয়ের ভাষা সহজ-সরল ও সহজবোধ্য, সকলেরই এতে প্রবেশাধিকার রয়েছে। শতকত্রয়ে ব্যাকরণিক নৈপুণ্য উল্লেখযোগ্য নয়। এসব কারণেই সহজে স্বীকার করার উপায় নেই যে, শতকত্রয় এবং ভট্টিকাব্য একই ব্যক্তির রচনা।
.
আবার কিংবদন্তীপ্রসূত জীবনচরিত এবং শতকত্রয়ের অভ্যন্তরীণ প্রমাণ থেকে জানা যায় যে, ভর্তৃহরি ছিলেন একজন ক্ষত্রিয়, পক্ষান্তরে ভট্টি ছিলেন ব্রাহ্মণ। ভর্তৃহরি ছিলেন রাজা বা রাজপুরুষ, কিন্তু ভট্টি ছিলেন বলভীরাজের পোষ্য কবি। বলভীর রাজা শ্রীধরসেনের কিংবা তাঁর পুত্র নরেন্দ্রের সভাকবি ছিলেন ভট্টি (খ্রিঃ ৪৯৫-৬৪১-এর মধ্যে যে-কোন এক সময়ে), এবং সেখানে থেকেই তিনি ভট্টিকাব্য রচনা করেছিলেন। কিন্তু ভর্তৃহরি নিজেই উজ্জৈন বা উজ্জয়িনীর রাজা থেকে থাকলে এবং পরবর্তীকালে সংসারবিরাগী সন্ন্যাসী হয়ে থাকলে তিনি অন্য রাজার সভাকবি হতে যাবেন এমনটা কোনক্রমেই বিশ্বাসযোগ্য হতে পারে না।
.
শতকত্রয় বিশেষত বৈরাগ্যশতক থেকে এটা প্রতীয়মান হয় যে, সংসারের তিক্ত অভিজ্ঞতা অর্জন করে ভর্তৃহরি সন্ন্যাসী হয়েছিলেন এবং বাকি জীবন অরণ্যে-আশ্রমেই অতিবাহিত করেছিলেন। নীতিশতকের একটি শ্লোকে বলা হচ্ছে-

কুসুমস্তবকস্যেব দ্বয়ী বৃত্তির্মনস্বিনঃ।
মূর্ধ্নি বা সর্বলোকস্য বিশীর্যেত বনেথবা।। ৩৩।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : ফুলের ন্যায় মহৎ ব্যক্তিদেরও দুটি মাত্র গতি হয়- হয় সর্বলোকের মস্তকে অবস্থান অথবা অরণ্যে জীর্ণ-শীর্ণ হয়ে যাওয়া।

.
মর্মার্থ দাঁড়ালো- সংসারে যারা সুখ না পায় তাদের জন্য অরণ্যই একমাত্র আশ্রয়স্থল। তাই বোধ করি সমগ্র বৈরাগ্যশতক জুড়ে এই আকুতি দেখা যায়- অরণ্যে গঙ্গাতীরে কিংবা হিমালয়ের কোন গুহাগহ্বরে বসে ‘শিব শিব’ মন্ত্র জপ করতে করতে শিবত্ব অর্জন করার। তাছাড়া বৈরাগ্যশতকের একটি শ্লোকে তাঁর স্পষ্ট উক্তি দেখতে পাই-

‘আমরা ভিক্ষাণ্ন ভোজন করি, দিক বস্ত্র পরিধান করি (দিগম্বর থাকি), ভূতলে শয়ন করি, সুতরাং রাজাদের কাছে আমাদের কী প্রয়োজন ?’- ।। ৫৬।। (ভর্তৃহরির বৈরাগ্যশতক)

অর্থাৎ যে-রাজ্য ত্যাগ করে তিনি দিগম্বর বা সন্ন্যাসী হয়েছেন পুনরায় সে-রাজ্যে তাঁর প্রয়োজন কী ?
.
তাই অন্য কোন চূড়ান্ত প্রমাণ না-পাওয়াতক ভট্টিকাব্যের ভট্টি আর শতককার ভর্তৃহরি যে এক নয়, তেমনি বাক্যপদীয়কার ভর্তৃহরি আর শতককার ভর্তৃহরিও এক নয়, এ ব্যাপারে আপাত সিদ্ধান্ত নেয়া অনুচিৎ হবে না বলেই মনে হয়। তাঁদের প্রত্যেককেই স্বতন্ত্র একেকজন কবি হিসেবেই আমরা ধরে নিতে পারি।
.
ভর্তৃহরির রচনাবলী
শৃঙ্গারশতক, নীতিশতক ও বৈরাগ্যশতক- এই শতকত্রয়ের কোথাও ভর্তৃহরির নাম লেখা না-থাকলেও তিনিই যে শতকত্রয়ের রচয়িতা- এ ব্যাপারে সকলেই প্রায় একমত। তবে কারো কারো মতে অবশ্য ভর্তৃহরি শতকত্রয়ের রচয়িতা নন, সঙ্কলয়িতা মাত্র। তিনি অন্য কবিদের রচিত এবং লোকমুখে প্রচলিত শ্লোকসমূহ বিষয়বস্তু অনুসারে তিনটি শিরোনামে বিন্যাস করেছেন বলে তাঁদের অভিমত (-Dr.Bohlen Ges Abraham Roger)।
.
এছাড়া শতকত্রয় ব্যতীত ভর্তৃহরির নামের সঙ্গে আরও কয়েকটি গ্রন্থের নাম যুক্ত করেছেন কেউ কেউ তাঁদের গ্রন্থে। সেগুলো হচ্ছে- ভট্টিকাব্য (বা রাবণবধ), বাক্যপদীয়, মহাভাষ্যদীপিকা, মীমাংসাভাষ্য, বেদান্তসূত্রবৃত্তি, শব্দধাতুসমীক্ষা ও ভাগবৃত্তি। এগুলোর মধ্যে প্রথম দুটি যে শতককার ভর্তৃহরির রচনা নয় সে সম্পর্কে ইতঃপূর্বেই আলোচনায় এসেছে। অবশিষ্ট গ্রন্থগুলি সম্পর্কে পক্ষে বা বিপক্ষে যথার্থ কোন যুক্তি বা তথ্য এখনো অজ্ঞাত বলে সুনির্দিষ্টভাবে কিছু বলা এখনি সম্ভব নয়।
তবে শতকত্রয় ভর্তৃহরির মৌলিক রচনা কি-না, এ সম্পর্কে তিনটি মত প্রচলিত আছে বলে জানা যায়। প্রথম মত হলো- শতকত্রয় ভর্তৃহরির মৌলিক রচনা নয়, সঙ্কলিত। দ্বিতীয় মত হলো- অন্য কোন কবি বা কবিরা শতকত্রয় রচনা করে ভর্তৃহরির নামে উৎসর্গ করেছেন। এবং তৃতীয় মত- শতকত্রয় ভর্তৃহরির নিজের রচনা।
.
প্রথম মতের প্রবক্তাদের যুক্তি হলো- শতকত্রয়ের শ্লোকগুলির মধ্যে পারস্পরিক ঐক্যসূত্র নেই এবং বিভিন্ন কবিদের রচিত শ্লোক এতে দেখা যায়। শতকত্রয়ের শ্লোকগুলির মধ্যে পারস্পরিক ঐক্যসূত্র নেই সত্য, কিন্তু প্রতিটি শতকের মোট শ্লোকগুলিকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করা যায় এবং এই ভাগগুলোর অন্তর্গত শ্লোকসমূহের মধ্যে একটি অন্তর্নিহিত ভাব-সঙ্গতি বা বক্তব্যের ঐক্য বর্তমান। প্রতিটি শতকের শ্লোকগুলিকে তাই দেখা যায় ভাব বা বক্তব্যভিত্তিতে দশ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। অতএব শতকত্রয়ের শ্লোকগুলো যে একেবারেই পরস্পর বিচ্ছিন্ন একথা স্বীকার্য নয়। তাছাড়া সংস্কৃত কাব্যের নিয়মে শতককাব্যের শ্রেণীই হচ্ছে ‘মুক্তক’. যার বৈশিষ্ট্যই হলো প্রতিটি শ্লোক হবে পরস্পর অর্থনিরপেক্ষ। এতে কোন কাহিনী থাকবে না, থাকবে না ঘটনার ঐক্য। তাই একটির সঙ্গে অন্যটির ঐক্যসূত্র নেই বলেই যে শতকত্রয় মৌলিক রচনা না হয়ে সঙ্কলিত গ্রন্থ হবে- এ অনুমানের বাস্তব ভিত্তি নেই বলেই মনে হয়।
.
শতকত্রয়ের মধ্যে অন্য কবিদের রচিত শ্লোক যে পাওয়া যায় তা সত্য। যেমন- কালিদাসের ‘অভিজ্ঞানশকুন্তলে’র (পঞ্চম অঙ্ক-১২) শ্লোকটি দেখা যায় নীতিশতকের এই শ্লোকে-

ভবন্তি নম্রাস্তরবঃ ফলোদ্গমৈ-
র্নবাম্বুভির্ভূরিবিলম্বিনো ঘনাঃ।
অনুদ্ধতাঃ সৎপুরুষাঃ সমৃদ্ধিভিঃ
স্বভাব এবৈষ পরোপকারিণাম্ ।। ৭০।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : ফলাগমে বৃক্ষসকল অবনত হয়, মেঘসকল নবজলভারে বিলম্বিত (নিম্নগামী হয় এবং) সজ্জনেরা সম্পত্তি (ঐশ্বর্য) লাভে বিনীত (হন)। পরোপকারীদের এটাই স্বভাব।

.
এবং বিশাখদত্তের ‘মুদ্রারাক্ষস’ নাটকের (দ্বিতীয় অঙ্ক-১৭) শ্লোকটি পাওয়া যায় নীতিশতকের এই শ্লোকে-

প্রারভ্যতে ন খলু বিঘ্নভয়েন নীচৈঃ
প্রারভ্য বিঘ্নবিহতা বিরমন্তি মধ্যাঃ।
বিঘ্নৈঃ পুনঃ পুনরপি প্রতিহন্যমানাঃ
প্রারব্ধমুত্তমজনা ন পরিত্যজন্তি।। ২৭।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : অধমেরা (দুর্বলচিত্তেরা) বিঘ্নভয়ে (কোন কাজ) আরম্ভ করে না, মধ্যমেরা (সাধারণ জন) আরম্ভ করে(-ও) বাধাগ্রস্ত (হয়ে তা থেকে) বিরত থাকে, (কিন্তু) উত্তমেরা (সাহসীরা) বারবার বাধাগ্রস্ত হয়েও আরম্ভকৃত (কাজ) কখনও পরিত্যাগ করেন না।

.
এরকম উদাহরণ আরো আছে। এ ধরনের শ্লোকগুলি যে নিশ্চয়ই পরবর্তীকালে লিপিকরদের হাতে প্রক্ষিপ্ত হয়েছে তার যথেষ্ট যুক্তি রয়েছে। কেননা শতককাব্যের নামের সার্থকতা বিচার করতে গেলে শতকত্রয়ের প্রত্যেকটিতে একশত করে মোট তিনশত শ্লোক থাকাই বাঞ্ছনীয় ছিলো। কিন্তু সেখানে আছে চারশোর কাছাকাছি।  জানা যায়, M.R.Kale  সম্পাদিত নীতিশতক ও বৈরাগ্যশতকে মূল শ্লোক সংখ্যা যথাক্রমে ১০৮ ও ১০১টি। এ ছাড়াও দুটি শতকে অতিরিক্ত শ্লোক সংখ্যা যথাক্রমে ২৫ ও ৪৪টি। এই অতিরিক্ত শ্লোকসমূহেরই কোন কোনটি আবার শতকদ্বয়ের অপর অপর সংস্করণে মূল শ্লোকসমূহের অন্তর্ভুক্ত দেখা যায়। তাই কোনটা যে ভর্তৃহরির আর কোনটা প্রক্ষিপ্ত তা নিরূপণ কষ্টকর বলে গবেষকদের মন্তব্য। সংস্কৃত সাহিত্যসম্ভার (তৃতীয় খণ্ড)-এ শৃঙ্গারশতকে শ্লোক সংখ্যা ১০০টি। এ হিসেবে তিনটি শতকে মোট শ্লোক সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৭৮।
.
ভর্তৃহরি হয়তো তিনটি কাব্যে তিনশত শ্লোকই রচনা করেছিলেন, কিন্তু কালে কালে লিপিকর ও অন্যান্যদের অনুগ্রহপুষ্ট হয়ে তাদের কলেবর আজ এতোটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এই প্রক্ষেপণের কাজটি পরবর্তীকালের কোন কোন অখ্যাত কবিদের দ্বারাও হতে পারে। কারণ শ্লোকসমূহের মধ্যে পারস্পরিক ঐক্যসূত্রই যখন নেই তখন ভাবগত ঐক্য বজায় রেখে একটি দুটি রচিত শ্লোক এর সঙ্গে যোগ হয়ে যাওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়। শতকত্রয়ে অন্যান্য যে সব কবির রচনা পাওয়া যায় তাঁদের দু-একজন ছাড়া বাকিরা অজ্ঞাত অখ্যাতই শুধু নয়, সময়ের মানদণ্ডে তাদের অধিকাংশই ভর্তৃহরির অর্বাচীন। যেমন সর্বজন-নন্দিত ‘মুদ্রারাক্ষস’ নাটকের স্রষ্টা সংস্কৃতের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি বিশাখদত্তের সময়কাল নিয়ে পণ্ডিতদের মধ্যে মতভেদ থাকলেও তিনি খ্রিস্টিয় পঞ্চম শতকের বলে ধরা হয়। সে বিবেচনায় সম্ভাব্য  খ্রিস্টপূর্ব প্রথম শতকের কবি ভর্তৃহরি নিজে এই সব শ্লোক তাঁর কাব্যে গ্রহণ করেন নি- পরবর্তীকালের প্রক্ষেপণকারীদেরই কাজ এটা।
.
ভর্তৃহরির রচনা সম্পর্কে অন্য যে মত- অন্য কবি বা কবিরা শতকত্রয় রচনা করে ভর্তৃহরির নামে প্রকাশ করেছে কিংবা ভর্তৃহরিই অন্যদের দ্বারা লিখিয়ে নিজের নামে প্রকাশ করেছেন। এ মতের কারণ হয়তো ভর্তৃহরি রাজা ছিলেন বলে। এরূপ প্রবাদ বা অপবাদ সংস্কৃত সাহিত্যের অনেক কবির বেলায়ই প্রচলিত রয়েছে বলে জানা যায়। কিন্ত পণ্ডিত মহলে এ মত সমাদর লাভ করে নি। কাজেই সবকিছু বিবেচনায় পণ্ডিতদের তৃতীয় মত অর্থাৎ শতকত্রয় ভর্তৃহরির নিজের মৌলিক রচনা- এটাই গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয়।
.
ভর্তৃহরির রচনাক্রম
ভর্তৃহরির শতকত্রয়ের মধ্যে কোনটি আগে এবং কোনটি পরে এ নিয়েও বিতর্ক আছে। কেউ কেউ বলেন প্রথমে নীতিশতক, তারপর শৃঙ্গারশতক এবং শেষে বৈরাগ্যশতক। কেউ এতে ভিন্নমত পোষণ করেন। তবে বৈরাগ্যশতক যে শেষে তা নিয়ে কারও দ্বিমত নেই, এবং সম্ভবত মতভেদের অবকাশও নেই। কারণ বৈরাগ্যের পর কারও জীবনে আর কিছু অর্থাৎ নীতি-অনীতি, শৃঙ্গার-প্রেম-কাম-ভালোবাসা বলতে কিছু থাকতে পারে না। তাছাড়া বৈরাগ্যশতকে কবির যে মনোভাব ব্যক্ত হয়েছে তাতে এটাই প্রতীত হয় যে, কবি ইতোমধ্যে নীতি বা সংসারনীতি এবং শৃঙ্গাররাজ্য অতিক্রম করে এসেছেন এবং সে-রাজ্যের অসারতা, বিশ্বাসহীনতা এবং আনন্দহীনতা তাঁকে পীড়িত করেছে। তাই বুঝি বৈরাগ্যশতকে নির্দ্বিধায় তিনি বলেন-
‘ভোগসুখে রোগের ভয়, সদ্বংশে বিপরীত আচরণজনিত দোষে বিচ্যুতির (সম্মান নাশের) ভয়, ধনসম্পদের বৃদ্ধিতে রাজাদের ভয়, অভিমানে দীনতার ভয়, শক্তিতে শত্রুর ভয়, সৌন্দর্যে বার্ধক্যের ভয়, শাস্ত্রজ্ঞানে তার্কিক প্রতিবাদীর ভয়, বিদ্যা-বিনয় প্রভৃতি গুণের বিষয়ে দুষ্ট লোকের অপবাদের ভয়, দেহে মৃত্যুর ভয়- জগতে মানুষের কাছে সমস্ত বস্তুই ভীতিপ্রদ কেবলমাত্র বৈরাগ্যই ভয়শূন্য। (সুতরাং ভয়াবহ ভোগ্য বিষয়সমূহ ত্যাগ করে বৈরাগ্যই আশ্রয় করা উচিত)’।। ৩১।। (-ভর্তৃহরির বৈরাগ্যশতক/ সংস্কৃত সাহিত্যসম্ভার, ১৬শ খণ্ড)।
.
‘মৃত্যু সমস্ত প্রাণীর জীবন, বার্ধক্য উজ্জ্বল রমণীর যৌবন, ধনলাভের বাসনা সন্তুষ্টিকে, প্রগল্ভা নারীর বিলাস ইন্দ্রিয়-অনাসক্তিজনিত আনন্দকে, অসহিষ্ণু ব্যক্তিরা বিনয় প্রভৃতি গুণকে, দুষ্ট হস্তী এবং সর্প পবিত্র অরণ্যভূমিকে, কুমন্ত্রণাদাতা দুর্জনরা রাজাদের এবং নশ্বরতা ধনসম্পদকে অভিভূত করে- এই সংসারে কোন্ বস্তু অন্য কিছু দ্বারা আক্রান্ত (অভিভূত) হয় না ?’ ।। ৩২।। (-ভর্তৃহরির বৈরাগ্যশতক /ঐ)
.
‘হে চিত্ত ! শ্রীশিবশম্ভুর প্রতি ভক্তিপরায়ণ হও, হৃদয়ে জন্মমৃত্যুর ভয় সর্বদা স্মরণ করো, পুত্র-পত্নী-বন্ধুর প্রতি মমতা ত্যাগ করো, কামনাজনিত বিকার অন্তরে স্থান দিয়ো না, সঙ্গদোষ শূন্য হয়ে (কাম-ক্রোধাদি প্রসঙ্গশূন্য হয়ে) নির্জন অরণ্যে বাস এই বৈরাগ্যের চেয়ে শ্রেষ্ঠ আর কী প্রার্থনার যোগ্য বিষয় আছে ?’ ।। ৬৮।।  (-ভর্তৃহরির বৈরাগ্যশতক /ঐ)

.
কাজেই এ থেকেই বুঝা যায় যে, বৈরাগ্যশতক শেষে অর্থাৎ কবির বৈরাগ্য অবলম্বনের পরেই রচিত হয়েছে। আর শৃঙ্গারশতক ও নীতিশতকের কোনটা আগে-পরের রচনা তা অনুমান করতে ভর্তৃহরির জনশ্রুত জীবন-চরিত বিশ্লেষণ করাই সঙ্গত। দেখা যায়- ভর্তৃহরি রাজা হওয়ার পরপরই রাজকার্যের প্রতি ভ্রূক্ষেপহীন থেকে সারাক্ষণই আকণ্ঠ সুরা আর নারীসম্ভোগে নিমগ্ন থাকতেন। তাঁর এই নারীসম্ভোগের অপূর্ব বর্ণনাই বিধৃত হয়েছে তাঁর শৃঙ্গারশতকে। এ বর্ণনা যে তাঁর স্বীয় অভিজ্ঞতারই ফল তা কাব্য-পাঠেই অনুধাবন করা যায়। শৃঙ্গারসাগরে সন্তরণ করতে করতে তিনি বলছেন-
‘সুধীজনেরা পক্ষপাতিত্ব বর্জন করে এবং বাস্তবতা বিচার করে ঠিক ঠিক বলুন তো, আমরা পর্বতের নিতম্ব (কটকদেশ) আশ্রয় করবো, না কামোচ্ছ্বাসে স্মিতহাস্যময়ী বিলাসিনীদের নিতম্ব আশ্রয় করবো ?’।। ৩৬।। (ভর্তৃহরির শৃঙ্গারশতক/ সংস্কৃত সাহিত্যসম্ভার, ১৬শ খণ্ড)
.
‘হয় গঙ্গার কলুষনাশী বারিতে, নয় তরুণীর হারমণ্ডিত মনোহর স্তন দুটিতে বাসস্থান রচনা করুন।। ৩৮।। (ভর্তৃহরির শৃঙ্গারশতক/ ঐ)
.
‘যুক্তিহীন বহুতর্কে লাভ কী ? পুরুষদের দুটি জিনিসই সর্বদা সেব্য- হয় সুন্দরীদের অভিনব কামলোলুপ স্তনভারাক্রান্ত যৌবন, নয় অরণ্য।। ৩৯।। (ভর্তৃহরির শৃঙ্গারশতক/ ঐ)
.
‘জনগণ ! আমি কোনরকম পক্ষপাতিত্ব না করে বলছি- সপ্তলোকে আমার এ কথা প্রযোজ্য : নিতম্বিনীদের মতো রমণীয় কিছু নেই, তাদের মতো দুঃখের মুখ্য হেতুও আর কিছু নেই।। ৪০।। (ভর্তৃহরির শৃঙ্গারশতক/ ঐ)

.
শৃঙ্গার সম্পর্কে কবির এই নিখুঁত বর্ণনা যে জীবন-অভিজ্ঞতা ব্যতীত সম্ভব নয়, তা সহজেই অনুমেয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, অন্য এক আকর্ষণীয় কিংবদন্তী অনুযায়ী, শৃঙ্গাররসাত্মক কাব্য ‘অমরুশতক’-এর রচয়িতাও (শংকরাচার্য) নাকি জনৈক মণ্ডনমিশ্রের বিদূষী পত্নী ভারতীর সঙ্গে একবার রতিবিষয়ক প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হেরে গিয়ে জনৈক মৃতরাজা অমরুর দেহ আশ্রয় করে তার অন্তঃপুরে যান এবং তাঁর স্ত্রীদের সঙ্গে বহুদিন যাপন করে রতিশাস্ত্রবিষয়ে পারদর্শিতা অর্জন করে উক্ত মহিলাকে বিতর্কে পরাজিত করেন। রতিবিষয়ক তাঁর সেই জ্ঞানই ‘অমরুশতক’ নামে পরবর্তীকালে খ্যাতিলাভ করে। কবি ভর্তৃহরির বেলায়ও হয়তো তা-ই হয়েছিলো। 
শৃঙ্গারশতকে নারী সম্পর্কে কবি ভর্তৃহরির এমন পক্ষপাতিত্বের মধ্য দিয়েও কিন্তু নারীদের প্রতি তাঁর বিতৃষ্ণা, অবিশ্বাস ও ঘৃণা কিছু কিছু প্রকাশিত হয়েছে। সেটাই দেখা যায় একটু পরেই-

‘সংশয়ের আবর্ত, অবিনয়ের ভুবন, সাহসের নগর, দোষের আকর, শতকপটতার আধার, অবিশ্বাসের ক্ষেত্র, স্বর্গদ্বারের বিঘ্ন, নরকের দ্বার, সমস্ত মায়ার পেটিকা, অমৃতময় বিষ, প্রাণিজগতের বন্ধন এমন স্ত্রীযন্ত্র কে সৃষ্টি করলো ?’।। ৪৫।। (ভর্তৃহরির শৃঙ্গারশতক/ ঐ)

.
নারীর প্রতি তাঁর এই ঘৃণা, সন্দেহ, অবিশ্বাস, বিতৃষ্ণা চরমে উঠে পত্নী অনঙ্গসেনার বিশ্বাসঘাতকতায়। তাই নীতিশতকের শুরুতেই তিনি বলেন-

‘যাকে (যার কথা) নিরন্তর চিন্তা করেছি (অর্থাৎ যাকে প্রাণের চেয়েও অধিক ভালোবেসেছি) সে (সেই প্রিয়তমা পত্নী) আমার প্রতি নিরাসক্ত, সে ভালোবাসে (বা কামনা করে) অন্য পুরুষকে; সেই পুরুষ (আবার) অন্যাসক্ত (অর্থাৎ অন্য স্ত্রীলোকে আসক্ত); আবার আমার কারণেও অনুশোচনা করে (অর্থাৎ দুঃখ পায় বা ধ্বংস হচ্ছে) (সে) অন্য কোনও এক স্ত্রীলোক। (তাই) ধিক্ সেই (পরপুরুষগামিনী) স্ত্রীলোককে, ধিক্ সেই পুরুষকে (যে একাধিক স্ত্রীজনে আসক্ত), ধিক্ এই (বারবণিতা) স্ত্রীলোককে এবং ধিক্ আমাকেও, (সর্বোপরি) ধিক্ সেই মদনকে (যার প্রভাবে এসব সংঘটিত হচ্ছে)’ ।। ০২।। (ভর্তৃহরি নীতিশতক)

এরপর সমগ্র নীতিশতকেই দেখি আমরা অন্য এক ভর্র্তৃহরিকে- যেন তিনি শৃঙ্গারশতকের কবি ভর্তৃহরি নন, সম্পূর্ণ অন্য এক ভর্তৃহরি। যেখানে তিনি শুধুই নীতির প্রচার করেছেন। নিজের মূর্খতা, অজ্ঞতা ও স্থূল বুদ্ধিবৃত্তির কুপরিণাম প্রচার এবং এসব হতে লোকে যাতে দূরে থাকে এবং আত্মমর্যাদা রক্ষা করে সবার শ্রদ্ধার পাত্র হিসেবে সংসারে টিকে থাকতে পারে, সেসব উপদেশ-নির্দেশনাই তিনি দিয়ে গেছেন তাঁর নীতিশতকে। হয়তো আপন জীবনের শিক্ষা দিয়ে তিনি অপরের জীবন-চলার পথ সুগম করতে চেয়েছেন। তাই সংসারে টিকে থাকতে মানুষের করণীয় কী হবে তা সম্পর্কে বলেন-

দাক্ষিণ্যং স্বজনে দয়া পরজনে শাঠ্যং সদা দুর্জনে
প্রীতিঃ সাধুজনে নয়ো নৃপজনে বিদ্বজ্জনেপ্যার্জবম্ ।
শৌর্যং শত্রুজনে ক্ষমা গুরুজনে নারীজনে ধূর্ততা
যে চৈবং পুরুষাঃ কলাসু কুশলাস্তেষ্যেব লোকস্থিতিঃ।। ২২।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : আত্মজনের প্রতি ঔদার্য, ভৃত্যজনের প্রতি দয়া; শঠের প্রতি সদা শাঠ্য, সজ্জনের প্রতি প্রেম; রাজজনের (রাজপুরুষদের) প্রতি নীতি, পণ্ডিতজনের প্রতি সারল্য; শত্রুদের প্রতি বীরত্ব (শৌর্য), পূজনীয়দের প্রতি সহিষ্ণুতা; নারীজনের প্রতি ছলনা (শঠতা) ইত্যাদি কলাবিদ্যায় যে-সকল পুরুষ পারদর্শী তাদের উপরই সংসারের স্থৈর্য (বা স্থিতিশীলতা নির্ভর করে, অর্থাৎ এই জগৎসংসারে তারাই সুখে বসবাস করতে পারে)।

শৃঙ্গারশতকে যাঁর সম্ভোগক্রিয়ার চমৎকার বিবরণ পরিলক্ষিত হয়, নীতিশতকে তারই মধ্যে দেখা যায় নীতিবোধের জাগরণ, নৈতিকতার পরাকাষ্ঠা। শৃঙ্গারশতকেই নারীদের প্রতি কবির মোহাচ্ছন্নতা কেটে ক্রমে যে ঘৃণার বাষ্প দেখা দিয়েছিলো, নীতিশতকে দেখা যায় তা মেঘ হয়ে বৃষ্টিপাতের ফলে তাঁর মনকে ধুয়ে মুছে একেবারে পূত-পবিত্র করে দিয়েছে। এবং বৈরাগ্যশতকে তিনি বৈরাগ্য অবলম্বন করে সংসার ত্যাগ করেন। এই তিনটি কাব্যের মৌল চেতনার রূপান্তরের মধ্যেই মূলত স্রষ্টা ভর্তৃহরির ক্রমবিবর্তিত মানস-চেতনার স্বাক্ষরই সমুজ্জ্বল হয়ে ধরা দিয়েছে।
.
ভর্তৃহরির নীতিশতক
ভর্তৃহরির রচনাশৈলী এমনিতেই অনুপম। তাঁর কাব্যে অর্থাৎ শ্লোকে দীর্ঘ সমাসবদ্ধ পদ খুবই অল্প দেখা যায়। এ কারণে তার ভাষা সহজ-সরল ও সর্বজনবোধ্য এবং ভাবগ্রাহীও। কাব্যের পরতে পরতে গভীর তাৎপর্য ব্যক্ত হয়েছে। বাক্য-গঠন সহজ ও স্বাভাবিক হলেও অর্থের দিক থেকে তা খুবই তাৎপর্যময় হওয়ায় ভর্তৃহরির শতকত্রয় বিশেষ করে নীতিশতক সকলেরই সুখপাঠ্য ও সহজবোধ্য হয়ে ওঠেছে। মানবজীবনের বিচিত্র বিষয়ের যথার্থ চিত্রণ করতে গিয়ে ভাব, ভাষা, ছন্দ ও অলঙ্কারের উপর তাঁর প্রশংসনীয় অধিকারের স্বাক্ষর তাঁর রচনাকে অনুপম সাহিত্যকর্মে পরিণত করেছে। সংস্কৃত শতককাব্যের জগতে তাই ভর্তৃহরির শতকত্রয় সর্বোচ্চ আসন দখল করে আছে বলে রসগ্রাহী পাঠকরা মনে করেন।
.
শ্লোকের অন্তর্নিহিত ভাব ও বক্তব্যের ঐক্য বিবেচনায় ভর্তৃহরির নীতিশতকের শ্লোকসমূহকে দশটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এগুলি হচ্ছে যথাক্রমে- অজ্ঞনিন্দা (বা মূর্খপদ্ধতি), বিদ্বৎপদ্ধতি, মানশোর্যপদ্ধতি, অর্থপদ্ধতি, দুর্জনপদ্ধতি, সুজনপদ্ধতি, পরোপকারপদ্ধতি, ধৈর্যপদ্ধতি, দৈবপদ্ধতি ও কর্মপদ্ধতি।
.
অজ্ঞনিন্দা বা মূর্খপদ্ধতি : মূর্খপদ্ধতির রচনাগুলিতে মূর্খদের সম্পর্কে কবির উপলব্ধি ও মতামত উপদেশাকারে বিধৃত হয়েছে। যেমন-

অজ্ঞঃ সুখমারাধ্যঃ সুখতরমারাধ্যতে বিশেষজ্ঞঃ।
জ্ঞানলবদুর্বিদগ্ধং ব্রহ্মাপি নরং ন রঞ্জয়তি।। ০৩।। (ভর্তৃহরি নীতিশতক)
অর্থাৎ : যে অজ্ঞ তাকে প্রসন্ন করা সহজ, বিজ্ঞকে প্রসন্ন করা আরও সহজ, (কিন্তু) স্বল্পজ্ঞানে গর্বিত যে পণ্ডিত তাকে ব্রহ্মাও পরিতুষ্ট করতে পারেন না।

.
বিদ্বৎপদ্ধতি : এই বিদ্বৎপদ্ধতির রচনায় বিদ্যা ও বিদ্বানের সুখ্যাতি ও প্রশংসা ধ্বনিত হয়েছে। যেমন-

হর্তুর্যাতি ন গোচরং কিমপি শং পুষ্ণাতি যৎসর্বদা
হ্যর্থিভ্যঃ প্রতিপাদ্যমানমনিশং প্রাপ্নোতি বৃদ্ধিং পরাম্ ।
কল্পান্তেষ্যপি ন প্রয়াতি নিধনং বিদ্যাখ্যমন্তর্ধনং
যেষাং তান্ প্রতি মানমুজ্ঝত নৃপাঃ কস্তৈঃসহ স্পর্ধতে।। ১৬।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : যা চোরের(-ও) দৃষ্টিগোচর হয় না, (যা) সর্বদাই কোনও এক অনির্বচনীয় আনন্দ দেয়, (যা) প্রার্থীদের (বিদ্যার্থীদের) মধ্যে নিরন্তর বিতরণ করলেও (শেষ হয় না, বরং) প্রচুর পরিমাণে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়, (এমন কি পৃথিবীর) প্রলয়কালেও (যা) ধ্বংস না হয়- সেই বিদ্যা নামক গুপ্ত ধন যাঁদের (আছে), হে রাজন্! তাঁদের প্রতি অহঙ্কার পরিত্যাগ করুন; কে তাঁদের কাছে স্পর্ধা দেখাতে পারে ?

.
মানশৌর্যপদ্ধতি : আত্মগৌরবে যাঁরা গর্বিত এবং আত্মশক্তিতে যারা আস্থাবান তারা কোন কারণেই হীন কাজে উদ্যোগী হন না- এ উপলব্ধির সারাৎসারই এই মানশৌর্যপদ্ধতির রচনার বিষয়বস্তু হয়েছে। যেমন-

ক্ষুৎক্ষামোপি জরাকৃশোপি শিথিলপ্রায়োপি কষ্টাং দশা-
মাপন্নোপি বিপন্নদীধিতিরপি প্রাণেষু নশ্যৎস্বপি।
মত্তেভেন্দ্রবিভিন্নকুম্ভকব লগ্রাসৈকবদ্ধস্পৃহঃ
কিং জীর্ণং তৃণমত্তি মানমহতামগ্রেসরঃ কেশরী।। ২৯।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : ক্ষুধায় কাতর হলেও, বার্ধক্যহেতু দুর্বল হলেও, প্রাণশক্তি ক্ষীণ হয়ে এলেও, (জীবনের) কষ্টকর অবস্থায় উপনীত হলেও, তেজ দূরীভূত হলেও মদমত্ত গজরাজের কপোলের মাংস এক গ্রাসে খেতে (যে) লুব্ধ (এবং) আত্মসম্মানে যারা মহান্ তাদের (মধ্যে যে) অগ্রগণ্য (সেই) সিংহরাজ (মৃগরাজ) কি প্রাণপাত হলেও শুষ্ক তৃণ ভক্ষণ করে ?

.
অর্থপদ্ধতি : প্রচলিত সমাজে যে অর্থই সব কিছুর মূল, সেই অর্থের জয়গানই অর্থপদ্ধতির রচনায় প্রতিপাদ্য হয়েছে। কখনো হয়তো শ্লোকের অন্তর্গত সূক্ষ্ম কটাক্ষও ধরা পড়ে। যেমন- 

যস্যাস্তি বিত্তং স নরঃ কুলীনঃ
স পণ্ডিতঃ স শ্রুতবান্ গুণজ্ঞঃ।
স এব বক্তা স চ দর্শনীয়ঃ
সর্বে গুণাঃ কাঞ্চনমাশ্রয়ন্তে।। ৪১।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : যার ধন আছে সেই মানুষ(-ই) কুলীন, সে প্রাজ্ঞ (বা পণ্ডিত), সে শাস্ত্রজ্ঞ, সে গুণবান্, সে-ই (উত্তম) বক্তা এবং সে (সকলের) দর্শনীয় হয়; সকল প্রকার গুণ অর্থকে(-ই) ঘিরে থাকে। 

.
দুর্জনপদ্ধতি : দুর্জন ব্যক্তি স্বভাবতই নির্দয় হয়ে থাকে। দুর্জনের দুর্জনত্ব কোন কারণের অপেক্ষা করে না। বিনা কারণেই তারা শত্রুতা করে। এ বিষয়ক রচনাই দুর্জনপদ্ধতির শ্লোকগুলিতে বর্ণিত হয়েছে। যেমন-

জাড্যং হ্রীমতি গণ্যতে ব্রতরুচৌ দম্ভঃ শুচৌ কৈতবং
শূরে নির্ঘৃণতা মুনৌ বিমতিতা দৈন্যং প্রিয়ালাপিনি।
তেজস্বিন্যবলিপ্ততা মুখরতা বক্তর্যশক্তিঃ স্থিরে
তৎ কো নাম গুণো ভবেৎ স গুণিনাং যো দুর্জনৈর্নাঙ্কিতঃ।। ৫৪।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : (দুর্জন ব্যক্তি) লজ্জাশীলের মধ্যে জড়তা, ব্রতচারীর মধ্যে দম্ভ, চরিত্রবানের মধ্যে কপটতা, বীরের মধ্যে হৃদয়হীনতা, মুনিদের মধ্যে প্রজ্ঞাহীনতা, প্রিয়ভাষীদের মধ্যে দুর্বলতা, বলবানের মধ্যে ঔদ্ধত্য, বক্তার মধ্যে বাচালতা (এবং) ধীরস্বভাব ব্যক্তির মধ্যে অসমর্থতা (ইত্যাদি দোষসমূহ) আবিষ্কার করে। অতএব, গুণীদের এমন কি গুণ আছে (বা থাকতে পারে) যা দুর্জন কর্তৃক (এমনিভাবে) কলঙ্কিত নয় (অথবা কলঙ্কিত হয় না) ।

.
সুজনপদ্ধতি : সজ্জনের সমাদর সর্বত্র- সবাই তাঁদের শ্রদ্ধা করে। সজ্জনের গুণ ও প্রশংসাসূচক রচনাই সুজনপদ্ধতির প্রতিপাদ্য হয়েছে। যেমন-

প্রদানং প্রচ্ছন্নং গৃহমুপগতে সম্ভ্রমবিধিঃ
প্রিয়ং কৃত্বা মৌনং সদসি কথানং চাপ্যুপকৃতেঃ।
অনুৎসেকো লক্ষ্ম্যাং নিরভিভবসারাঃ পরকথাঃ
সতাং কেনোদ্দিষ্টং বিষমমসিধারাব্রতমিদম্ ।। ৬৪।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : দানের কথা গোপন রাখা, গৃহাগত (অতিথি)-কে সাদর অভ্যর্থনা জানানো, (কারও) উপকার করে মৌন থাকা, (কিন্তু অপরের) উপকারের কথা সৎসভায় (অর্থাৎ সজ্জনদের মধ্যে) প্রচার করা, সম্পদে গর্বহীনতা (এবং) অন্যের সম্পর্কে নিন্দা না করা- খড়গধারার মতো দুশ্চর এই ব্রতের উপদেশ সদ্ব্যক্তিদের কে দিয়েছে ?

.
পরোপকারপদ্ধতি : যারা পরোপকারী সজ্জন ব্যক্তি তাঁরা বিপুল ঐশ্বর্যের অধিকারী হলেও অবিনীত হন না, বিনয়ই যেন তাঁদের অঙ্গভূষণ। দয়া তাঁদের পরম ধর্ম। এ ধরনের প্রশস্তিই পরোপকারপদ্ধতির শ্লোকগুলিতে উক্ত হয়েছে। যেমন-

ভবন্তি নম্রাস্তরবঃ ফলোদ্গমৈ-
র্নবাম্বুভির্ভূরিবিলম্বিনো ঘনাঃ।
অনুদ্ধতাঃ সৎপুরুষাঃ সমৃদ্ধিভিঃ
স্বভাব এবৈষ পরোপকারিণাম্ ।। ৭০।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : ফলাগমে বৃক্ষসকল অবনত হয়, মেঘসকল নবজলভারে বিলম্বিত (নিম্নগামী হয় এবং) সজ্জনেরা সম্পত্তি (ঐশ্বর্য) লাভে বিনীত (হন)। পরোপকারীদের এটাই স্বভাব। 

.
ধৈর্যপদ্ধতি : ধৈর্য মনস্বী ব্যক্তিদের প্রধান গুণ। অভীষ্ট বস্তু লাভ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা ধৈর্য ত্যাগ করেন না। এই ধৈর্যগুণের তাৎপর্য বিশ্লেষণ ধৈর্যপদ্ধতির শ্লোকের অভীষ্ট হয়েছে। যেমন-

কান্তাকটাক্ষবিশিখা ন লুনন্তি যস্য
চিত্তং ন নির্দহতি কোপকৃশানুতাপঃ।
কর্ষন্তি ভূরিবিষয়াশ্চ ন লোভপাশৈ-
র্লোকত্রয়ং জয়তি কৃৎস্নমিদং স ধীরঃ।। ৮৫।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : বণিতার কটাক্ষশর যাঁর হৃদয়কে ছিন্ন (বিদ্ধ) করতে পারে না, ক্রোধাগ্নির সন্তাপ (যাঁকে) দগ্ধ করতে পারে না, অমিত বিষয়-সম্পদ (যাঁকে) লোভের বন্ধনে আবদ্ধ করতে পারে না- সেই ধৈর্যশীল ব্যক্তি(-ই) এই সমগ্র ত্রিভুবন জয় করতে পারেন।

.
দৈবপদ্ধতি : দৈব মানুষের নিয়ন্ত্রক, রক্ষক। দৈবের কাছে পৌরুষ নিষ্ক্রিয়। এরকম অদৃষ্টবাদী দৃষ্টিভঙ্গি দৈবপদ্ধতির শ্লোকগুলিতে অনুরণিত হতে দেখা যায়। যেমন-

কার্যায়ত্তং ফলং পুংসাং বুদ্ধিঃ কর্মানুসারিণী।
তথাপি সুধিয়া ভাব্যং সুবিচার্যৈব কুর্বতা।। ৯২।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : পুরুষের (অর্থাৎ মানুষের সুখ-দুঃখাদি) ফল (যদিও পূর্বকৃত) কর্মের অধীন, (এবং) বুদ্ধি কর্মের অনুসারিণী, তথাপি বিজ্ঞজনের উচিত সুবিবেচনাপূর্বক কার্য নির্ধারণ করা।

.
কর্মপদ্ধতি : কর্মই সবচেয়ে শক্তিশালী, কারণ দেখা যায় বিধি মানুষকে যে ফল দান করে তার উপর বিধির কোন নিয়ন্ত্রণ নেই- কর্মের দ্বারাই তা নিয়ন্ত্রিত হয়। তাই কর্মই সবার শ্রেষ্ঠ। এই অনুধাবনই কর্মপদ্ধতির শ্লোকগুলিতে ব্যক্ত হয়েছে। যেমন-

নমস্যামো দেবান্ননু হতবিধেস্তেপি বশগা
বিধির্বন্দ্যঃ সোপি প্রতিনিয়তকর্মৈকফলদঃ।
ফলং কর্মায়ত্তং কিমমরগণৈঃ কিং চ বিধিনা
নমস্তৎকর্মভ্যো বিধিরপি ন যেভ্যঃ প্রভবতি।। ৯৯।। (ভর্তৃহরির নীতিশতক)
অর্থাৎ : আমরা (কি) দেবগণকে নমস্কার করবো ? কিন্তু তারাও (যে) ঘৃণ্য বিধির বশীভূত। (তাহলে কি) বিধি বন্দনীয় ? (কিন্তু) সে-ও সদা কর্মানুযায়ী ফল দান করে থাকে। (আর) ফল যদি কর্মের(-ই) অধীন (হয় তাহলে) দেবতা কিংবা বিধাতার কী প্রয়োজন ? অতএব (সেই) কর্মকেই নমস্কার- যার উপর বিধিরও নিয়ন্ত্রণ নেই (অর্থাৎ বিধিও যার অধীন)।

.
ভর্তৃহরির নীতিশতকে এরকম অনেক শ্লোক আছে যা শুধু শুষ্ক নীতিকথাই প্রচার করছে না- বরং ভাব, ভাষা, ছন্দ, অলঙ্কার ও অর্থ সমন্বয়ে সেগুলো সংস্কৃত সাহিত্যভাণ্ডারের একেকটি অমূল্য রত্নরূপে পরিগণিত। আর এ কারণেই ভর্তৃহরির নীতিশতক সংস্কৃত সাহিত্য-জগতে এক বিশেষ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত হয়ে আছে।

[ অনুসৃত সূত্রগ্রন্থ : ভর্তৃহরির নীতিশতক / দুলাল ভৌমিক / বাংলা একাডেমী ঢাকা, মার্চ ১৯৮৯ ]

(চলবে…)

[ ভূমিকাপর্ব ] [ * ] [ চাণক্যপর্ব ]

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

রণদীপম বসু


‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই। তা প্রকাশ করতে যদি লজ্জাবোধ হয়, তবে সে ধরনের চিন্তা না করাই বোধ হয় ভাল।...’
.
.
.
(C) Ranadipam Basu

Blog Stats

  • 193,445 hits

Enter your email address to subscribe to this blog and receive notifications of new posts by email.

Join 77 other followers

Follow h-o-r-o-p-p-a-হ-র-প্পা on WordPress.com

কৃতকর্ম

সিঁড়িঘর

দিনপঞ্জি

মার্চ 2012
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
« ফেব্রু.   এপ্রিল »
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

Bangladesh Genocide

1971 Bangladesh Genocide Archive

War Crimes Strategy Forum

লাইভ ট্রাফিক

ক’জন দেখছেন ?

bob-contest

Blogbox
Average rating:

Create your own Blogbox!

হরপ্পা কাউন্টার

Add to Technorati Favorites

গুগল-সূচক

টুইট

Protected by Copyscape Web Plagiarism Check
%d bloggers like this: